বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম”

“আসসালামু আলাইকুম”
Hello! Friends, আমার আজকের পোষ্টে আপনাদের সকলকে স্বাগতম জানাচ্ছি,,,,

তোমরা সকলে কেমন আছো? আশা করি ভালো আছো সবাই ভালো আছো । আমি আলহামদুলিল্লা ভালো আছি 
আজকের টপিক,
[OTG] এর গুরত্বপূর্ণ ও দরকারী ব্যবহার। নতুনদের জন্য

Image result for otg
অনেকের ফোনেই ওটিজি আছে; কিন্তু অনেকেই জানেন না যে ওটিজি কি এবং এটি দিয়ে আপনি কি করতে পারবেন । আবার অনেকে দুই একটি ব্যাবহার জানলেও হয়তো সবগুলো জানেন না। আসলে ইউএসবি বেসড মোটামুটি প্রায় সব কাজই করা যায় ওটিজি দিয়ে।
তাহলে চলুন দেরী না করে দেখে নিই ওটিজির কিছু মজাদার ব্যাবহার-
১. কীবোর্ড সংযোগ : যে কোনো ব্র্যান্ড বা সাইজ এর ইউএসবি কীবোর্ড আপনার এন্ড্রয়েড এর সাথে সংযুক্ত করে কাজ করতে পারবেন।
২. মাউস সংযোগ : যে কোনো ধরনের ইউএসবি আপনার এন্ড্রয়েড এর সাথে সংযুক্ত করে পিসির মতো সব কাজ করতে পারবেন।
৩. ইউএসবি ফ্যান : হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন অতিরিক্ত গরমে আপনার এন্ড্রয়েড এর সাথে একটি ইউএসবি ফ্যান সংযুক্ত করে নিজে যেমন হাওয়া খেতে পারবেন আবার স্মার্টফোনের ব্যাটারী গরম হয়ে গেলে তাকেও হাওয়া দিয়ে ঠান্ডা করতে পারবেন। খুবই কার্যকর বাংলাদেশের জন্য। আর ইউএসবি ফ্যান এর দাম পড়বে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা আর ফ্যান ১ ঘন্টা চালালে আপনার এন্ড্রয়েড এর চার্জ যাবে কমবেশি অর্ধেক যদি ফুলচার্জ থাকে।
৪. কার্ড রিডার : ওটিজি কেবলের সাথে কার্ড রিডার সংযুক্ত করে আপনার এন্ড্রয়েড থেকেই কাট, কপি,পেস্ট,ডিলিট সব করতে পারবেন।
৫. গেম কন্ট্রোলার : এন্ড্রয়েড এর যেসব গেম; গেম কন্ট্রোলার সাপোর্ট করে আপনি সহজেই ওটিজির মাধ্যমে গেম কন্ট্রোলার সংযুক্ত করে সেসব গেম কন্ট্রোলার দিয়ে খেলতে পারবেন।
৬. ইউএসবি লাইট : বেশীক্ষন আপনার এন্ড্রয়েড এর ফ্ল্যাশ জ্বালিয়ে রাখলে ফোন তো গরম হবেই আবার ফ্ল্যাশলাইট নষ্ট হবার সম্ভাবনা থাকে। এর সমাধান হলো বেশীক্ষন আলো প্রয়োজন হলে ওটিজির মাধ্যমে একটি ইউএসবি ফ্ল্যাশলাইট সংযোগ। যা ফোনের ফ্ল্যাশ এর চেয়ে তিনগুন আলো বেশি দিবে একই চার্জে।
৭. ল্যান (Lan) সংযোগ : ধরুন আপনার বাসায় ওয়াই ফাই নেই কিন্তু ব্রডব্যান্ড সংযোগ আছে। কি করবেন ? আপনার এন্ড্রয়েড এর সাথে ওটিজি কেবল দিয়ে ইউএসবি ল্যান এর সংযোগ দিন এয়ারপ্লেন মোড ও করুন আর যতখুশি নেট চালান।
৮. ইন্টারনেট মডেম সংযোগ : সিমের ডাটা প্ল্যান শেষ; চিন্তা নেই এন্ড্রয়েড এর সাথে ওটিজি দিয়ে মডেম সংযুক্ত করেন,প্লে স্টোর থেকে পিপিপি উইজেট বা সমমানের এপ ডাউনলোড করুন,সেট আপ করুন ; ধুমসে ইন্টারনেট চালান।
৯. হার্ডডিস্ক সংযোগ : হোক না ৫০০ জিবি বা ১ টেরা বে ২ টেরা; ওটিজি কেবল দিয়ে হার্ডডিস্কে সংযোগ দেন এন্ড্রয়েড এর। যা খুশি তাই করেন।
১০. ডি এস এল আর (DSLR) : বলেন কি; মাথা খারাপ ? নারে ভাই সত্যি কথা। প্লে স্টোর থেকে dslr dashboard এপ টি ডাউনলোড করুন,ওটিজি দিয়ে এন্ড্রয়েড এর সাথে ডি এস এল আর কানেক্ট করুন। এন্ড্রয়েড থেকেই এপ দিয়ে সম্পূর্ণ ডি এস এল আর নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।
১১. ইউএসবি সাউন্ড কার্ড : আপনার এন্ড্রয়েড এর সাথে ওটিজি কেবল দিয়ে একটি ইউএসবি সাউন্ড কার্ড সংযুক্ত করে যেকোনো ধরনের সাউন্ড ডিভাইসে গান শুনতে পারবেন।
১২. অন্য ফোনে চার্জ দেয়া : এন্ড্রয়েড এর একটি বড় সমস্যা তাড়াতাড়ি চার্জ শেষ হয়। দেখা গেল আপনি দূরে কোথাও বা এমন জায়গায় গেলেন হঠাৎ ফোনের চার্জ শেষ হয়ে গেল কিন্তু ফোন অন রাখা জরুরি। এক্ষেত্রেও ওটিজি হতে পারে আপনার সমস্যার সমাধান। আপনার ফোনের ওটিজি কেবল এর সাথে বন্ধু বা পরিচিত বা আপনার নিজেরই আরেকটি ফোনের সাথে নরমাল ইউএসবি কেবলের মাধ্যমে সংযোগ দিন। দেখবেন আপনার ফোনটি চার্জ হবে
উপরোক্ত সবগুলো কাজের জন্য আপনার ফোনে ওটিজি ফাংশন থাকতে হবে এবং একটি ওটিজি কেবল থাকতে হবে যা ফোন বা ট্যাব কেনার সময় কোম্পানী দিয়ে থাকে। আর যদি আপনি ওটিজি কেবল না পেয়ে থাকেন; চিন্তা নেই বাজারে ১০০ টাকার মধ্য ভাল ভাল বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ওটিজি কেবল পাওয়া যায়। যে কোনো একটা কিনে নিবেন।


**পোষ্ট টি ভালো লাগলে অবশ্যই  কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না


,,,,আল্লাহ্ হাফেজ,,,,,