মটো রেজর ভি৩
আজকের পোস্টে সবাইকে স্বাগতম সবাই কেমন আছেন আশা করি ভালো আছেন আপনাদের দোয়াই আমি ভালো আছি

দীর্ঘ ১৫ বছর পর এগিয়ে গেলো মটোরোলা। এবার আসছে টাচ স্ক্রিন নিয়ে,যথারীতি নজরকাড়া নকশায় ভাঁজযোগ্য সুবিধায়। আসছে মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের চোখ ছানাবড়া হওয়ার মতোই দাম ধরা হয়েছে রেজর ভি৩ ফ্লিপ ফোনের। দাম ধরা হয়েছে দেড় হাজার ডলার!

মটোরোলার এক সময়ের বাজার কাঁপানো স্মার্টফোন মটো রেজরের ছবি চোখে ভাসতেই পারে। ২০০৪ সালে বাজারে আসা ওই ফোনটি তখন দারুণ সাড়া ফেলেছিল। নজরকাড়া নকশা ছিল ফোনটির অন্যতম আকর্ষণ। এবারও একই নকশায় আসছে রেজর ভি৩। কেবল এগিয়েছে প্রযুক্তিতে।
মূলত, ভাঁজ করা যায় এমন স্মার্টফোন নিয়ে জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। গত বছর এ ধরনের স্মার্টফোন তৈরির পদক্ষেপের কথা জানায় দক্ষিণ কোরিয়ান প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান স্যামসাং। এরপরই বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। ধারণা করা হচ্ছিল, স্যামসাংই হয়তো ভাঁজযোগ্য স্মার্টফোন প্রথম বাজারে নিয়ে আসবে। কিন্তু এই ধারণাকে ভুল প্রমাণ করে চীনের স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান রয়োলে। তারা লাস ভেগাসে সদ্য সমাপ্ত কনজিউমার ইলেক্ট্রনিকস শোতে (সিইএস) অবমুক্ত করে-ফ্লেক্সপাই। এর পর্দার আকার ৭ দশমিক ৮ ইঞ্চি।  ভাঁজ করে স্মার্টফোন হিসেবে ব্যবহারের সুযোগ থাকলেও এটি মূলত এটা মূলত একটি ট্যাবলেট। স্মার্টফোন মোডে এই ডিভাইসের পর্দা থাকে ৪ ইঞ্চি। আর বাকি অংশটি ব্যাটারি চার্জ সংরক্ষণের জন্য।
কিন্তু বাস্তবে শুধুই ভাঁজযোগ্য টাচ স্ক্রিনের স্মার্টফোন নিয়ে এবার স্যামসাংকে টেক্কা দিয়ে এগিয়ে গেলো মটোরোলা। কেননা এতোদিন পর্যন্ত নির্মাতারা ছোট আকারের ট্যাবকে ভাঁজ খুলে প্রমাণ আকারের একটি স্মার্টফোনে রূপান্তর করেছেন। কিন্তু মটোরোলা নিজেদের নকশায় কোন আপস না করে শুধু টাচ প্রযুক্তির সন্নিবেশ ঘটিয়েছে। ফাঁস হওয়া ছবি দেখে স্পষ্টই বোঝা গেছে, মটো রেজর যেভাবে ভাঁজ করা যেতো রেজর ভি৩ ফ্লিপ ফোনটি একইভাবে ভাঁজ করা যায়। ভাঁজ অবস্থায় ওপরের ডিসপ্লেও আছে যথারীতি। পুরুত্বের দিকদিয়ে খুবই পাতলা। দূর থেকে তাই ভি৩ রেজরের হালনাগাদ সংস্করণ মনে হবে।

পোস্টি কেমন লাগল তা কমেন্ট জানাতে ভুলবেন না