Thursday, October 25, 2018

একটা সফটওয়্যারই কম্পিউটারের আলো থেকে আপনার চোখকে রক্ষা করবে


 এটা যারা জানেন না, শুধুমাত্র তাদের জন্য ]
এখনকার সময়ে কম্পিউটার আর ইন্টারনেট শব্দ দুইটা আমাদের প্রাত্যাহিক জীবনের সাথে অঙ্গাঙ্গী ভাবে জড়িত। এই দুইটা ছাড়া মনে হয় আমাদের জীবন চলেই না। আর ফেসবুকের কল্যাণে তো কম্পিউটারের সামনে প্রতিদিন দুই ঘন্টা না বসলেই নয়, এমন লোক খুব কমই পাওয়া যাবে। তাছাড়া কম্পিউটারে বসে দৈনন্দিন পত্রিকা পড়ার কথা আর নাই বা বললাম। এমন অনেক সময় কম্পিউটারের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে এর আলোতে আমাদের চোখে প্রবলেম শুরু হয়। আজকে আমি আপনাদের এমন একটি সফটওয়্যার এর কথা বলবো যেটা আপনার কম্পিউটারের মনিটরের আলো নিয়ন্ত্রণ করে আপনার চোখকে সুরক্ষিত রাখবে।


এই সফটওয়্যারটির নাম F.lux । এটা স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার মনিটরের আলো বাড়িয়ে-কমিয়ে আপনার মনিটরের আলোকে আপনার চোখের জন্য সংবেদনশীল রাখবে।

ডাউনলোডঃ
এটা উইন্ডোজ এর সকল ভার্সনেই কাজ করবে। ডাউনলোড করুন এখান থেকে ।
কার্যপ্রণালীঃ
১. সফটওয়্যারটা ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নেন।
২. সফটওয়্যারটা ওপেন করলে আপনি সব অপশন দেখতে পাবেন।
৩. এটা যখন ওপেন করবেন তখন এটা আপনার টাইম-জোন স্বয়ংক্রিয়ভাবে সিলেক্ট করে নিবে এবং আপনার মনিটরের আলোকে হ্যালোজেন, ফ্লুরোসেন্ট অথবা ডে-লাইট এ পরিবর্তন করবে।

৪. আপনি Change Setting অপশন ব্যাবহার করে আপনার নিজের মত করে সেটিংস করতে পারবেন।
৫. সেটিংস অপশনে গেলে আপনি আপনার দিনের অথবা রাতের আলোকে নিজের পছন্দ মতো বাড়িয়ে-কমিয়ে নিতে পারবেন।
৬. আপনি আপনার সঠিক Latitude দিয়ে আপনার লোকেশন ঠিক করে দিতে পারবেন।
৭. কালার সেনসিটিভ কাজ যেমন ওয়েব-ডিজাইনিং, ফটো-এডিটিং, অ্যানিমেশন তৈরি, গ্রাফিক্স-ডিজাইনিং এর সময় এটাকে ডিজেবল বাটন দ্বারা বন্ধ করে রাখতে পারবেন।

কিভাবে বুঝবেন এটা আপনার কম্পিউটারে কাজ করছে কিনাঃ
এটা আপনি খুব সহজেই নির্ণয় করতে পারবেন। শুধু আপনি এই সফটওয়্যারটাকে কিছু সময়ের জন্য ডিজেবল করে রাখুন। এবার আপনার মনিটরের স্ক্রীনের আলোর পার্থক্য দেখেই বুঝতে পারবেন F.lux কিভাবে আপনার মনিটরের আলোকে নিয়ন্ত্রণ করছিল।
এটা প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল এখানে।
এটা প্রথম ইংলিশে প্রকাশ করা হয়েছিল এখানে।
আমি এই সফটওয়্যারটি অনেক দিন ধরে ব্যাবহার করছি। আমি এটা ব্যবহার করে অনেক উপকার পেয়েছি। তাই, আশাকরি আপনাদেরও ভালো লাগবে। যদি কোন সমস্যা হয়, তাহলে কমেন্ট করতে ভুলবেন নাহ কিন্তু।

Google Adsense কেন এবং কিভাবে ব্যান হয়? অবশ্যই জেনে নিন

কেমন আসেন বন্ধুরা । আশা রাখি সবাই ভাল আছেন। কিন্ত আমি বেশি ভাল নাই কারন কয়েকদিন আগে আমার Adsense account ব্যান করে দিয়েছে। কিন্ত আমি আশা ছারছি না। আমি Adsense থেকে সফল হবই……।

তাই আজ লিখতে বসলাম কি কি কারনে Adsense account ব্যান হতে পারে ।
Bloging জগতে ইনকামের সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হল Adsense। আমাদের দেশে Adsense পাওয়াই দুসকর আবার পেলেও আমাদের কিছু ভুলের কারনে Adsense থেকে প্রাপ্ত ফলাফল পাই না বরং ব্যান করে দেয় আমাদের Account  এবং আমরা হতাশ হয়ে পরি কিন্তু হতাশ হবার কন কারন নাই আপনি একটু ভাল ভাবে খেয়াল রেখে Adsense ব্যবহার করলে সমস্যা নেই।
দেখুন কেন ব্যান হয় Adsense 
  • নতুন website অথবা blog এ Adsense add বসালে ব্যান খাওয়ার  সমভাবনা থাকে।
  • নিজের add এ নিজে click করলে adsense account ব্যান হবে।
  • SEO এর কাজ শেষ না করে add বসালে adsense account ব্যান হতে পারে।
  • বিভিন্ন সামাজিক website এ seo করার সময় adsense account ব্যান হতে পারে।
  • Refaral link এর মাধ্যমে বেশি visitor আসলে adsense account ব্যান হতে পারে।
  • একটি page এ ৩টির বেশি add বসালে account ব্যান হতে পারে।
  • Copy paste content ব্যবহার করলে adsense account ব্যান হবে।
  • Pornografi or sexul content post করলে ব্যান খাবেন।
ভাইয়ারা post টি যদি আপনাদের উপকারে আসে তাহলে আমার লেখা সারথক হবে। অবশ্যই আমাকে comment করবেন

Tuesday, October 16, 2018

পছন্দের ভিডিও কীভাবে Youtube থেকে ডাউনলোড করবেন জেনে নিন!

বিষয় টা কারো অজানা না।  কিন্তু নতুন অনেকেই আছে যারা সিস্টেম টা জানেনা। তাদের জন্য আজকের এই পোষ্ট।  youtube হলো world এর মধ্যে জনপ্রিয় ভিডিও সাইট। বর্তমানে youtube হলো বিশাল একটি অনলাইন শিক্ষক।  অনেক জটিল সমস্যা আমরা youtube টিউটোরিয়াল থেকে প্লে করে সমাধান করতে পারি।  বলতে গেলে youtube হলো ভিডিও টিওটোরিয়াল এর রাজা।

শুধু তাই নয় মজার মজার ফান ভিডিও নতুন নতুন গান,  সিনেমা,  নাটক প্রায় সব ধরনের বিনোদিনী youtube প্লে করে দেখা যায়। কিন্ত এতে শুধু প্লে করে দেখা যায় এতে কোন ডাউনলোড অপশন নেই।  আজ দেখাবো কিভাবে youtube থেকে ডাউনলোড করা যায়। চলুন শুরু করি……………
  • প্রথমে youtube এ প্রবেশ করে আপনার পছন্দের ভিডিও টি সিলেক্ট করে এর লিংক টা কপি করুন।
  • তারপর আরেকটা নতুন ট্যাব নিন এবং সেখানে টাইপ করুন www.ssyoutube.com অর্থাৎ youtube লেখার আগে দুটি ssযোগ করে দিন।
  • আরেকটি সাইটে চলে যাবে।  সেখানে একটি সার্চ ইন্জিন পাবেন। কপি করা লিংকটি সেখানে পেষ্ট করে সার্চ করুন।  দেখবেন আপনার পছন্দের ভিডিও টি চলে এসেছ।
  • তারপর সেখান থেকে ফরমেট সিলেক্ট করে ডাউনলোড করে ফেলুন আপনার পছন্দের ভিডিও টি।

আপনার নামে কয়টি সিম নিবন্ধিত হয়েছে জেনে নিন!

আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) ব্যবহার করে অন্য কেউ আপনার নামে ভূঁয়া মোবাইল সিম নিবন্ধন করে আপনাকে ফাঁসাতে পারে। তাই জেনে নেওয়া দরকার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে আপনার নামে কয়টি সিম কার্ড নিবন্ধিত হয়েছে। 

Unlimited Web Hosting
আপনার এনআইডির বিপরীতে নিবন্ধিত মোবাইল সিমের সংখ্যা জানা যাবে ঘরে বসেই। এর জন্য সংশ্লিষ্ট মোবাইল থেকে এসএমএস বা ডায়াল করতে হবে । জেনে নিন কিভাবে- টেলিটক : info লিখে এমএমএস করুন 1600 নম্বরে গ্রামীণফোন : মেসেজ অপসনে গিয়ে info লিখে পাঠিয়ে দিন 4949 নম্বরে বাংলালিংক : ডায়াল করুন *1600*2# নম্বরে এয়ারটেল : *121*4444# ডায়াল করুন রবি : *1600*3# ডায়াল করুন ফিরতি এমএমএসে জানিয়ে দেওয়া হবে আপনার নামে কয়টা সিম নিবন্ধিত হয়েছে। অযাচিত সিম নিবন্ধন হয়ে থাকলে বন্ধ করার জন্য দ্রত সংশ্লিষ্ট কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করুন।